আফগানিস্তান সফর করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান!

0
29

আফগানিস্তান সফর করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এসময় ইমরান খান মার্কিন মদদপুষ্ট আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানির সাথে বিশদ বৈঠক করেছেন। বৈঠকে দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের উন্নয়ন এবং আফগানিস্তানে স্থিতিশীলতা আনার জন্য গত দুই বছরে গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের পর্যালোচনা করা হয়।

বৃহস্পতিবার (২০ নভেম্বর) পাক প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর এই প্রথম তিনি কাবুল সফর করেন।

একটা শান্তিপূর্ণ, স্থিতিশীল, ঐক্যবদ্ধ, গণতান্ত্রিক, সার্বভৌম ও সমৃদ্ধশালী আফগানিস্তান গড়ার ব্যাপারে পাকিস্তানের সহায়তার কথা পুনর্ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী খান। তিনি তার দীর্ঘদিনের মত পুনর্ব্যক্ত করে বলেন যে, আফগানিস্তানের সমস্যার কোন সামরিক সমাধান নেই এবং আলোচনার মাধ্যমে রাজনৈতিক পথেই এর সমাধান হতে হবে।

আলোচনার সাথে জড়িত সব পক্ষের প্রতি ইমরান খান সহিংসতা কমানোর আহ্বান জানান যাতে একটা অস্ত্রবিরতিতে পৌঁছানো যায় এবং বেসামরিক মানুষের প্রাণক্ষয় বন্ধ হয়। একটা অন্তর্ভুক্তিমূলক, ব্যাপকভিত্তিক ও সামগ্রিক রাজনৈতিক সমঝোতার গুরুত্বের উপর জোর দিয়ে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেন, এই শান্তি প্রক্রিয়ায় আফগানদের নেওয়া সিদ্ধান্তকে শ্রদ্ধা জানাবে পাকিস্তান। শান্তি প্রক্রিয়া ভেস্তে দেওয়ার জন্য চেষ্টা চলছে বলেও সতর্ক করে দেন তিনি।

ইন্টার সার্ভিসেস ইন্টেলিজেন্সের ডিরেক্টর জেনারেল লে. জেনারেল ফায়েজ হামিদও প্রতিনিধি দলের সাথে ছিলেন। বৈঠকের পরে ইমরান খান আশরাফ ঘানির সাথে মিলে সংবাদ সম্মেলন করেন। ইমরান খান বলেন যে, পাকিস্তান সহিংসতা কমানোর জন্য এবং আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য তার সর্বোচ্চ চেষ্টা করবে। পাকিস্তানের জনগণ আর সরকারের একটাই উদ্বেগ রয়েছে, সেটা হলো আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠা করা কারণ এই দেশের জনগণ চার দশক ধরে দুর্দশায় ভুগছে”।

তিনি বলেন, তালেবানদের আমেরিকার সাথে আলোচনায় বসানো এবং চুক্তি স্বাক্ষরের ব্যাপারে এবং এখন আফগান-অভ্যন্তরীণ আলোচনার ব্যাপারে পাকিস্তান যদিও তার ভূমিকা রেখেছে, কিন্তু আফগানিস্তানে এখনও সহিংসতার মাত্রা বাড়ছে, যেটা উদ্বেগের বিষয়।

ইমরান খান মার্কিন মদদপুষ্ট আফগান সরকারকে আশ্বস্ত করে বলেন যে, শান্তি অর্জনের জন্য পাকিস্তান সম্ভাব্য সব উপায়েই আফগানিস্তানকে সহায়তা করবে। আপনাদের প্রত্যাশার চেয়েও বেশি সহায়তা করবে পাকিস্তান।

আমন্ত্রণ জানানোর জন্য আফগান সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়ে ইমরান খান বলেন যে, তিনি অন্তত বিগত ৫০ বছর ধরে আফগানিস্তান সফরের পরিকল্পনা করে আসছেন। “আমাকে এই ঐতিহাসিক কাবুল শহরে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য আমি খুবই খুশি। আমাদের দেশের সাথে এই দেশের ঐতিহাসিক যোগাযোগ রয়েছে”।

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর ও দ্য নিউজ