ভারতে কুরবানি দিলে কঠোর ব্যবস্থা: বিজেপি নেতা!

কুরবানি নিয়ে সরগরম হয়ে উঠেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের রাজনীতি। বিতর্কের সুত্রপাত নন্দকিশোর গুর্জর নামের এক বিজেপি বিধায়কের মন্তব্যে।

গাজিয়াবাদের লোনি কেন্দ্রের ওই বিধায়কের দাবি, করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে এ বছর ঈদে কুরবানি দেয়া উচিত নয় মুসলিমদের। আর নেহাতই যদি কুরবানি দিতে হয়, তাহলে নিজের সন্তানকে দিন। নিরীহ পশুগুলোকে মারবেন না। খবর সংবাদ প্রতিদিনের।

বিজেপির ওই বিধায়ক নিজের অনুগামীদের বলছিলেন, যেভাবে সনাতন ধর্মে এখন আর বলি দেয়া হয় না। নারকেল ফাটিয়ে আমরা বলিদানের রীতি পালন করি।

সেভাবেই মুসলিমদের আমি বলবো, করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে এ বছর কুরবানি বন্ধ রাখুন। নিরীহ পশুগুলোকে মারবেন না। ঈদে কাউকে কুরবানি দিতে দেখা গেলেই কড়া ব্যবস্থা নেয়া হবে। আর যদি কেউ ভেবে থাকেন, না আমি কুরবানি দেবই। তাহলে নিজের প্রিয় জিনিস, নিজের সন্তানকে কুরবানি দিন। আমাদের কোনও আপত্তি নেই।

নন্দকিশোর গুর্জরের এই বক্তব্য সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গেছে। তাকে আরও বলতে শোনা গেছে, প্রকৃতির নিয়মই হলো যে যেমন কাজ করবে, তাকে তেমন ফল পেতে হবে। এই জন্মে যদি আপনি ছাগল বা ভেড়া কেটে খান, তাহলে পরের জন্মে আপনাকেও ছাগল-ভেড়া হতে হবে। তখন লোকে আপনাকেও কেটে খাবে।

বিজেপি নেতার এই বক্তব্যের প্রতিবাদ করতে গিয়ে আবার আরেকটি বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন সমাজবাদী পার্টির সাংসদ সইফুর রহমান।

তিনি আবার বলছেন, কোনও শক্তিই মুসলিমদের নামাজ পড়ার অধিকার কেড়ে নিতে পারবে না। কুরবানির ঈদে আমরা বাজারেও যাবো। কুরবানিও দেবো।