তুরস্কের প্রথম ঘরোয়া প্রযুক্তিতে তৈরি আধুনিক ATMACA মিসাইল উৎক্ষেপণ পরীক্ষায় সফল

ইস্তাম্বুল|


তুরস্কের সর্বপ্রথম ঘরোয়া প্রযুক্তিতে তৈরি মিসাইল ATMACA এর উৎক্ষেপণ পরীক্ষা সফল হয়েছে। এখন এটি নিরাপত্তা বাহিনীর উইপন্স ইনভেন্টরিতে প্রবেশের অপেক্ষায় রয়েছে বলে জানিয়েছে তুরস্কের সংবাদমাধ্যম ডেইলি সাবাহ।

তুরস্কের সর্বপ্রথম ঘরোয়া প্রযুক্তিতে তৈরি মিসাইল ATMACA উৎক্ষেপণ পরীক্ষায় সফলতা অর্জন করেছে। শিঘ্রই মিসাইলটি নিরাপত্তা বাহিনীর উইপন্স ইনভেন্টরিতে প্রবেশ করবে বলে জানিয়েছেন তুরস্কের ডিফেন্স ইন্ডাস্ট্রিজ প্রেসিডেন্সি SSB এর প্রধান ইসমা’ঈল দেমির জানিয়েছেন।

আজ অর্থাৎ শনিবার ইসমা’ঈল দেমির একটি টুইটবার্তায় বলেনঃ

” এই বারে ATMACA একটি দীর্ঘ দূরত্বে উড়ল। এটি সফলভাবে ২০০ কিঃমিঃ এর বেশি দূরত্বে একটি লক্ষ‍্যবস্তুতে আঘাত হেনেছে এবং উইপন্স ইনভেন্টরিতে প্রবেশের জন্য প্রস্তুত।”

এই আধুনিক প্রযুক্তির মিসাইলটি মডার্ন নাভাল প্লাটফর্মগুলিতে সার্ভিসের জন্য প্রস্তুত হয়েছে ও সার্ফেস টু সার্ফেস মিসাইল জগতে একটি নতুন যুগের সূচনা করতে চলেছে।

এই অ‍্যান্টি শিপ মিসাইলটি তৈরির কার্যক্রম শুরু হয় ২০০৯ সালে ও ২০১৮ সালে মিসাইলটির কয়েকটি পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয় ও ঐ বছর এই মিসাইলের বহুল উৎপাদনের জন্য তুরস্কের SSB ও সামরিক কোম্পানি রকেটসানের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

অত‍্যাধুনিক এই মিসাইলটি যে কোন আবহাওয়াতে চলমান ও স্থায়ী লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে পারে। এছাড়া এই মডার্ন গাইডেড মিসাইলটি টার্গেট আপডেট, পুনরায় আক্রমণ, টাস্ক ক্যান্সেলেশনেও সক্ষম। এছাড়া এর এডভ্যান্সড থ্রিডি রুট সিস্টেম রয়েছে।

এই মিসাইলটির উৎক্ষেপণ নিয়ন্ত্রণ সিস্টেমটি তুরস্কের কোম্পানি আসেলসান ও ফায়ার কন্ট্রোল সিস্টেম টি তুর্কিশ নাভাল রিসার্চ সেন্টার কম‍্যান্ড ArMarCom এর তৈরি। মিসাইলটি ২০১৯ সালে ইস্তাম্বুলে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক প্রতিরক্ষা শিল্প মেলা IDEF19 এ প্রদর্শিত হয়।

উল্লেখ্যঃ এই মিসাইলের রেঞ্জ হল প্রায় ২৫০ কিঃমিঃ। এই মিসাইলটি তুরস্কের আধুনিক শিল্পবিপ্লবে একটি নতুন দিগন্তের সূচনা করবে।


© টি আর টি বাংলা ডেস্ক