আল সিসির বক্তব্য যুদ্ধের প্রচারণা নয়, লিবিয়া নিয়ে ভোলবদল মিশরের

কায়রো|


মাত্র কয়েকদিন আগেই মিশরের রাষ্ট্রপতি আব্দুল ফাত্তাহ আল সিসি লিবিয়ার সিরতকে রেডলাইন হিসেবে ঘোষণা দিয়ে মিশরীয় সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু ২৪ ঘন্টা পেরোতে না পেরোতেই ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে গেল মিশর। আল সিসির বক্তব্য যুদ্ধের প্রচারণা ছিল না বলে জানিয়েছেন মিশরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সামিহ শুকরী। এসংবাদ জানিয়েছে দ‍্য লিবিয়া অবজার্ভার।

গত শনিবার মিশরের রাষ্ট্রপতি আব্দুল ফাত্তাহ আল সিসি লিবিয়ার তৈল সমৃদ্ধ শহর সিরতকে ‘রেডলাইন’ হিসেবে ঘোষণা দিয়ে মিশরের সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দেন। এই নিয়ে মিশরের ঘরে বাইরে সমালোচনার ঝড় ওঠে। অবশেষে অবস্থান থেকে ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে মিশরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, আল সিসির বক্তব্য যুদ্ধের প্রচারণা ছিল না।

গত রবিবার সৌদি আরব সমর্থিত আল আরবী সংবাদমাধ্যমে একটি সাক্ষাৎকারে তিনি জানান যে, লিবিয়ার জিএনএ সরকার আল সিসির বক্তব্যকে ভুল বুঝেছে। তিনি বলেন, “সিসির বক্তব্য যুদ্ধের প্রচারণা ছিল না বরং শান্তির আহ্বান ছিল।”

তিনি জানান যে, এবিষয়ে লিবিয়ার দুই প্রতিবেশী দেশ তিউনিসিয়া ও আলজেরিয়ার সাথে যোগাযোগ রেখেছে মিশর। কিন্তু ঠিক কি কারণে সেদিন আল সিসি এমন রণংদেহীঃ রূপ ধরেছিলেন সে বিষয়টি পরিষ্কার নয়। অনেকে বলছেন ইথিওপিয়ার দিক থেকে মিশরীয়দের নজর ঘোরাতে এমন হুমকি তিনি দিয়েছিলেন।

উল‍্যেখ‍্যঃ ২০১১ সালে গদ্দাফীর পতনের পর লিবিয়াতে ইসলামপন্থী দল ক্ষমতায় আসার পর থেকে পশ্চিমা কিছু দেশ, রাশিয়া, মিশর সহ বেশ কিছু ষড়যন্ত্রী দেশের সহায়তায় সন্ত্রাসি হফতার দেশটিকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিয়েছে।

কয়েক মাস আগে লিবিয়ার সেনাবাহিনী সন্ত্রাস নির্মূল অভিযান শুরু করেন। এপর্যন্ত লিবিয়ার রাজধানী তারাবলুস বা ত্রিপোলি সহ লিবিয়ার একটি বড় অংশ সন্ত্রাসি মুক্ত করা হয়েছে।


© টি আর টি বাংলা ডেস্ক