পিচ্চি আহমাদের আবদারে সিরিয়া থেকে তার পরিবারকে ইস্তাম্বুলে আনল তুরস্ক

 

ইস্তাম্বুল|


সিরিয়ার ছোট শিশু আহমাদের শারিরিক চিকিৎসা চলছে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে। কিন্তু অনেক দিন হল তার মায়ের ও বোনের সাথে দেখা হয় নাই। এজন্য সে কয়েকদিন ধরে ছটফট করছিল। তুরস্ক সরকার আহমাদের আবদার কি আর ফেলতে পারে? সুদূর সিরিয়া থেকে আনা হল আহমাদের মা ও আদরের বোনকে। এসংবাদ জানিয়েছে আনাদোলু এজেন্সি (আরবী)।

যুদ্ধ বিধ্বস্ত সিরিয়ার ছোট্ট শিশু আহমাদ হুমাইদান ইদলিবের বাসিন্দা। মাত্র আড়াই বছর বয়সেই সন্ত্রাসিরা তার থেকে ছিনিয়ে নিয়েছে অনেক কিছুই। গুত্বাহ অঞ্চলে সিরিয়ার অবৈধ স্বৈরাচারী শাসক বাশার আল আসাদের সন্ত্রাসীদের আক্রমণে গুরুতর আহত হয় আহমাদ।

চিকিৎসার জন্য সে তার পিতার সাথে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে চলে আসে। কিন্তু কয়েক মাস যাবত ইস্তাম্বুলে চিকিৎসারত থাকার কারণে সে তার মা ও বোনের অভাব বোধ করতে থাকে ও তাদের সাথে দেখা করার জন্য অস্থির হয়ে পড়ে। ফলে আহমাদের পিতা মুহাম্মাদ হুমাইদান আনাদোলুতে আবেদন করেন। বিষয়টি তুরস্ক সরকারের নজরে আসতেই গত শুক্রবার সিরিয়া থেকে ইস্তাম্বুলে আনা হয় আহমাদের মা ও তার বোন মারিয়াকে। আনন্দে অশ্রুচোখে উভয়কে স্বাগত জানান মুহাম্মাদ ও আহমাদ।

উল‍্যেখ‍্যঃ ২০১১ সালে সিরিয়ার গণ অভ্যুত্থানের পর আসাদ সরকার সিরিয়ার উপর যুদ্ধ চাপিয়ে দেয়। এরপর আসাদ, রাশিয়া ও ইরান এবং তাদের সমর্থিত সন্ত্রাসি , আমেরিকা, পিকেকে ও দায়েশের উৎপাতে দেশটি ধ্বংসের মুখে চলে যায়। এরপর তুরস্ক সিরিয়ার জনগণের পাশে দাঁড়িয়ে সকল সন্ত্রাসিদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করেছে। বর্তমানে তুরস্কে সবথেকে বেশি সিরিয়ার শরণার্থী বসবাস করেন। বহু শরণার্থীকে তুরস্ক ইতিমধ্যে নাগরিকত্ব দিয়েছে।


© টি আর টি বাংলা ডেস্ক