সিরিয়া ও লিবিয়ার পর এবার ইয়েমেনেও অত‍্যাচারীত মানুষের পাশে দাঁড়াতে এবার ইয়েমেন অভিযান তুরস্কের?

 

ইস্তাম্বুল|


সাম্প্রতিক ইয়েমেনের মজলুম জনতার পাশে দাঁড়াতে তুরস্কের ইয়েমেন অভিযান নিয়ে বেশ জোরদার জল্পনা শুরু হয়েছে।‌ কিছুদিন আগে সোশ‍্যাল মিডিয়ায় এবিষয়ে জনরব ওঠে। সাম্প্রতিক দ‍্য আরব উইকলি নামক একটি পত্রিকাতে তুরস্কের ইয়েমেন অভিযান সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হবার পর জল্পনা আরো তীব্র হয়েছে।

সাম্প্রতিক পার্স টুডে দ‍্য আরব উইকলির উক্ত প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে জানিয়েছে যে,
তুরস্ক ইয়েমেনের দক্ষিণ উপকূলে সেনা মোতায়েনের পরিকল্পনা নিয়েছে বলে জানা গেছে। এডেন উপসাগরের বাব আল-মান্দেব প্রণালীতে মূলত তুরস্ক এসব সেনা মোতায়েন করতে চাইছে। তুরস্কের এ পরিকল্পনায় সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত চিন্তিত হয়ে পড়েছে।

আরব উইকলি নামের একটি সাপ্তাহিক জানিয়েছে, মিশরের ইখওয়ানুল মুসলিমীন আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত ইয়েমেনের কয়েকজন রাজনৈতিক এবং উপজাতি নেতাকে কাতার সরাসরি অর্থ সহযোগিতা করে থাকে। শুধু তাই নয়, ইয়েমেনেও ইখওয়ানুল মুসলিমীনের প্রভাব প্রবল। এজন্য সেখানে ইখওয়ানুল মুসলিমীনের মতবাদধারী দলকে আরবজোট সমীহ করে চলে বলে জানা যায়। সম্ভবতঃ তাদের সমর্থনে মূলত তুরস্ক ইয়েমেনের দক্ষিণ উপকূলে সেনা মোতায়েন করতে যাচ্ছে।

আরব উইকলির উক্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, তুরস্ক বর্তমানে উপকূলীয় সাবওয়া, সাকোত্রা এবং আল মাখা এলাকায় সেনা মোতায়েন করবে। ইয়েমেনের একটি অজ্ঞাত সূত্রের বরাত দিয়ে আরব উইকলি এ খবর দিয়েছে।

পত্রিকাটির খবরে বলা হয় ইয়েমেনের সাবওয়া এলাকায় মানবিক ত্রাণ তৎপরতার ছদ্মাবরণে তুরস্কের গোয়েন্দা সংস্থা কাজ করছে। তায়িজ প্রদেশের এসব এলাকায় ইখওয়ানুল মুসলিমিনের প্রভাব দিন দিন বেড়ে চলেছে।

আরব উইকলির খবর থেকে ধারণা করা হচ্ছে যে, দক্ষিণ ইয়েমেনে তুরস্ক বৃহত্তর রাজনৈতিক ভূমিকা পালন করতে যাচ্ছে। এ কাজে দেশটিকে সহায়তা করবে স্থানীয় ইখওয়ানুল মুসলিমিনের নেতারা।

তুরস্ক ইয়েমেনে অভিযান শুরু করলে প্রবল গণ সমর্থন পাবে বলে আশা করা যাচ্ছে। এমনিতেই দীর্ঘ দিন ধরে  আমেরিকা ও  বিভিন্ন আরব দেশের আক্রমণ ও তাদের শোষণ নিপীড়ন ও সন্ত্রাসবাদের প্রসারের ফলে ইয়েমেনের ভয়ংকর হয়ে উঠেছে। এই সময় তুরস্কের অভিযান দেশটিতে শান্তি ফিরিয়ে আনতে সহায়তা করবে বলে আশা করা যাচ্ছে।


© টি আর টি বাংলা ডেস্ক