সামাজিক দূরত্ব বিঘ্নঃ পদত্যাগ করেও জনগণের অনুরোধে আবার স্বপদে বহাল তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

 

ইস্তাম্বুল|

হঠাৎ লকডাউন ঘোষণা করায় লোক বাজার হাট করতে গিয়ে সামাজিক দূরত্ব বিঘ্ন ঘটে।এতে নিজেকে দোষী ভেবে হঠাৎ করেই আশ্চর্যজনক ভাবে পদত্যাগ পত্র জমা দিয়েছিলেন তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুলাইমান সোয়লু। কিন্তু জনগণের তীব্র প্রতিবাদ ও অনুরোধের পর পদত্যাগপত্র গ্রহণ করলেন না রাষ্ট্রপতি রজব তৈয়‍্যব এরদোগান। ফলে নতুন করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে পথচলা শুরু হল সুলাইমান সোইলুর।

গত শুক্রবার রাতে ৩১ টি বড় প্রদেশে দুদিনের জন্য কার্ফু ঘোষণা করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়। রাত ১০ টায় এ ঘোষণা আসে এবং ১২ টা থেকে কার্যকর শুরু হয়। স্বভাবতই জনগন মার্কেটগুলোতে তাদের নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী ক্রয় করতে বের হয় এবং বড় ধরনের সিরিয়াল দেখা যায়। মুহুর্তেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যপক সমালোচনা হয় বিশেষ করে এই রাতে কার্ফু ঘোষনা করার জন্য। বিষয়টি এমন হয়ে দাড়ায় যে, করোনা ভাইরাসে গত একমাসে তুরস্ক যে সাবধানতা অবলম্বন করছিল তা এক মুহুর্তেই বিনষ্ট হয়ে যায়। হয়তো কার্ফুর দুইদিনে যতলোক না বাহিরে বের হতো কিংবা সংক্রামনের সম্ভাবনা থাকতো তা দুই ঘন্টাতেই মোটামুটি হয়ে যায়।

এই ঘটনার দায় নিয়ে গতকাল পদত্যাগ করেছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সোলাইমান সইলু। তিনি একে পার্টির একজন সেরা এবং সফলদের মাঝে একজন। বিশেষ করে ২০১৫-১৬ এর দিকে তুরস্কে শুরু হওয়া সিরিজ বোমা হামলা, পিকেকের নানা বিধ্বংসী কার্যক্রমকে বন্ধ করতে ও জননিরাপত্তার ক্ষেত্রে এক দুঃসাহসী ভূমিকা রেখেছিলেন এই মন্ত্রী। মন্ত্রীদের মাঝে উনি অন্যতম সিনিয়র মন্ত্রী। যদিও প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান তার পদত্যাগপত্র গ্রহন করেননি।

ইতিমধ্যে তাঁর পদত্যাগের খবর ছড়িয়ে পড়লে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিশেষ করে টুইটারে এটা নিয়ে ঝড় ওঠে। ওনার পদত্যাগপত্র যেনো গ্রহন না করা হয় তা নিয়ে নানা ক্যাম্পেইন ও অনুরোধ শুরু হয় । অবশেষে রাষ্ট্রপতি রজব তৈয়‍্যব এরদোগানও তাঁর পদত্যাগ পত্র গ্রহণ করেন নি। ফলে নিজের পদে আবার বহাল হয়েছেন জনদরদী এই নেতা।

তিনি এই তথাকথিত আধুনিক যুগের শাসকদের জন্য একটি শিক্ষা রেখে দিলেন। ক্ষমতার লোভ নয়, উপরওয়ালাকে ভয় করে জনগণের দায়িত্ব বুঝে নেওয়া ও জনগণের সেবাই হল প্রকৃত শাসকের পরিচয়। এই দ্বীনদরদী নেতা শিখিয়ে দিলেন যে, জনগণের অধিকার থেকে তাদের বঞ্চিত করা ও তাদের আমানতের খেয়ানত করা ইসলামের দৃষ্টিতে চরমতম অন‍্যায়। তিনি আরো শিক্ষা দিলেন যে, জনগণের ভালোবাসা পেতে হলে তাদের হক পূর্ণভাবে আদায় করতে হবে। তাতে ব্যর্থ হলে পদত্যাগ করতে হবে। ইসলামের অনুপম শিক্ষাকে তিনি বাস্তবায়ন করে দেখালেন।

© টি আর টি বাংলা