আসাদ যেন পেছনের দিকে সরে দাড়ায়ঃপুতিনের প্রতি এরদোগান

trtbangla

শুক্রবার টেলিফোনে প্রেসিডেন্ট এরদোগান রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিনকে অনুরোধ করেন বিদ্রোহীদের শক্তিশালী ঘাটি ইদলিব থেকে সিরিয়ার সরকারকে হটে যেতে। দুই নেতা কথা বলার পর এরদোগান এক বিবৃতিতে জোর দিয়ে বলেন যে, আসাদ ইদলিব থেকে সরে যাওয়া উচিত কেননা তা মানবিক সংকটে রুপ নিয়েছে। এই দুই নেতা সিরিয়ার বিষয়ে বিদ্যমান চুক্তিগুলির প্রতিশ্রুতিও পুনরুক্ত করেন।

ফোন কলের সময় রাষ্ট্রপতি এরদোগান বলেন যে, ইদলিবের সঙ্কট কেবলমাত্র সূচি চূক্তি সমঝোতাভাবে প্রয়োগ করেই সমাধান করা যেতে পারে। এ ব্যাপারে ক্রেমলিন জানিয়েছে, দুই নেতা ইদলিবের বিষয়ে যোগাযোগ আরও জোরদার করতে সম্মত হয়েছেন।
অপরদিকে দুইজন লিবিয়া সংকট নিয়েও আলচনা করেছেন । জাতিসংঘ জানিয়েছে যে ৯০০,০০০ মানুষ – যার অর্ধেকেরও বেশি শিশু ভয়াবহ পরিস্থিতিতে রয়েছে যখন দেশটির সর্বশেষ বিরোধী ও বিদ্রোহী-অধিষ্ঠিত অঞ্চল ইদলিবে নিয়ন্ত্রন নেওয়ার জন্য সিরিয়া সরকার আক্রমণ শুরু করে।

ইদলিব ২০১৮ সালের শেষদিকে তুরস্ক ও রাশিয়ার মধ্যে একটি চুক্তির মাধ্যমে যুদ্ধ ও সংঘাতমুক্ত এলাকার অন্তর্ভূক্ত হয়। সিরিয়ার সরকার এবং তার মিত্ররা অবশ্য ধারাবাহিকভাবে যুদ্ধবিরতির শর্ত ভঙ্গ করেছে এবং সেই যুদ্ধবিরতি অঞ্চলে বারবার আক্রমণ করে যেখানে সবরকমের সংঘাত নিষিদ্ধ। চলতি মাসে সিরিয়া সরকারের আক্রমনে তুরস্কের এক ডজনেরও বেশি সেনা মারা যাওয়ার পরেও রাশিয়ার ও তুরস্কের মধ্যে সহযোগিতা নাজুক পর্যায়ে রয়েছে। তুরস্ক এর প্রতিক্রিয়ায় আসাদের বহু সেনাকে হত্যা করে ও শতাধিক টার্গেট ধ্বংস করে।
এরদোগান সিরিয়া সেনাদের বলেছিলো তারা যেন তুরস্কের পর্যবেক্ষণ অবস্থানগুলো থেকে দূরে সরে যায় যা ২০১৮ সালে রাশিয়া ও তুরস্ক সকরকারের মধ্যে চুক্তির অংশ ছিলো যে, আসাদ সেনারা অত্র এলাকার ভেতরে প্রবেশ করবে না।
গত নয় বছরের গৃহ যুদ্ধে সিরিয়ার লক্ষ লক্ষ মানুষ নিহত ও বাস্তুচ্যুত হয়েছে এবং দেশটির বেশিরভাগ অঞ্চল ধ্বংসস্তূপে পরিনিত হয়েছে।

সোর্সঃ টিআরটি ওয়ার্ল্ড
বিঃ দ্রঃ আমাদের লেখা অবিক্রিত রেখে ও ক্রেডিট দিয়ে যে কোন পোর্টালে প্রকাশ করতে পারেন।