"ইয়ে লো আজাদী", জামিয়া মিল্লিয়া ছাত্রের উপর গুলি কট্টর হিন্দু সন্ত্রাসবাদীর | TRT Bangla
Home আন্তর্জাতিক “ইয়ে লো আজাদী”, জামিয়া মিল্লিয়া ছাত্রের উপর গুলি কট্টর হিন্দু সন্ত্রাসবাদীর

“ইয়ে লো আজাদী”, জামিয়া মিল্লিয়া ছাত্রের উপর গুলি কট্টর হিন্দু সন্ত্রাসবাদীর

0
“ইয়ে লো আজাদী”, জামিয়া মিল্লিয়া ছাত্রের উপর গুলি কট্টর হিন্দু সন্ত্রাসবাদীর

 

দিল্লিঃ আজ ভারতের দিল্লীতে বহুল সমালোচিত নাগরিকত্ব বিলের প্রতিবাদের সময় জামিয়া মিল্লিয়া ইসলামিয়ার ছাত্রের উপর গুলি চালালো কট্টর হিন্দুত্ববাদী সন্ত্রাসি। শাদাব ফারুক নামের এক কাশ্মীরী ছাত্র এই গুলিতে আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

দিল্লিতে আন্দোলন চলাকালীন পুলিশের সামনেই আচমকা ‘ইয়ে লো আজাদী’ বলে গুলি চালাতে থাকে এক কট্টরপন্থী স‍্যাফ্রন সন্ত্রাসি। হঠাৎ শাদাবের বাঁ হাতে গুলি লাগে।

কাশ্মীরি এই যুবককে প্রথমে ‘হোলি ফ্যামিলি’ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে তাঁকে অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সের ট্রমা সেন্টারে নিয়ে ভর্তি করানো হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা।

পুলিশ সূত্রে খবর, উত্তর প্রদেশের গৌতমবুদ্ধ নগরের বাসিন্দা এই ব্যক্তি। তাঁর বয়েস ১৯। ফেসবুকে রামভক্ত গোপাল বলে একটি প্রোফাইল চালান তিনি। সেখান থেকেই বারবার হামলার বিষয়ে নানা পোস্ট করা হয়েছিল। বিরোধিতা করা হয়েছিল শাহিন বাগ আন্দোলনের।

জামিয়ার ছাত্রদের মিছিলে গুলি চালানোর অভিযোগ তাঁর বিরুদ্ধে। ভাইরাল হওয়া ভিডিয়োতে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে, ‘ইয়ে লো আজাদি’ বলতে বলতে গুলি চালিয়েছেন তিনি। হামলার কয়েক মিনিট আগে পিস্তল উচিয়ে লাইভও করেছিলেন। জানিয়েছিলেন ‘বদলা’ নেওয়ার কথা। পোস্টে লিখেছিলেন, ‘শাহীন ভাগ খেল খতম।’ একের পর এক ভিডিয়ো সামনে আসতেই প্রশ্ন উঠছে এই ব্যক্তির পরিচয় নিয়ে।

বৃহস্পতিবার মহাত্মা গাঁধীর ৭২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে রাজঘাটের দিকে শান্তিপূর্ণ ভাবে মিছিল করে যাচ্ছিলেন জামিয়ার পড়ুয়ারা। সেই সময়ই ওই মিছিল লক্ষ্য করে পিস্তল তাক করেন। এই ঘটনার পরে ছাত্ররা ধরে ফেলেন ওই যুবককে। গ্রেফতার করা হয় ওই যুবককে। তাঁর ফেসবুক প্রোফাইলে স্পষ্ট, তিনি দীর্ঘ সময় ধরে পরিকল্পনা করেছেন এই হামলার। বারবার হুমকি দিয়ে পোস্ট করেছেন। কোনও পোস্টে লেখা, ‘শাহিন ভাগ খেল খতম,’ কোথাও লেখা, ‘এই আমার শেষযাত্রা’। ‘আমি এখানে একা হিন্দু’, এমনও পোস্ট দিয়েছেন এই ব্যক্তি। পিস্তল উঁচিয়ে লাইভ করেছেন। তাঁর বক্তব্য, জনৈক চন্দন নামক ব্যক্তির হত্যার বদলায় এই ঘটনা ঘটিয়েছেন তিনি। ঘটনার কিছুক্ষণের মধ্যেই উক্ত সন্ত্রাসির একাউন্টটি ফেসবুক থেকে ডিলিট করা হয়।

আপনাদের প্রিয় ওয়েবসাইট TRT Bangla এন্ড্রয়েড এপ্স লঞ্চ করেছে। প্রত্যেকে নিজের মোবাইলে ইন্সটল করতে ছবিতে ক্লিক করুন।
TRT Bangla

FREE
VIEW