ফিলিস্তিনিদের ন্যায্য অধিকার দিতে হবে -পোপ ফ্রান্সিস।

ফিলিস্তিনি জনগণকে তাঁদের ন্যায্য অধিকার দিতে হবে, বঞ্চিত করা যাবে না, বলেছেন খ্রিস্টানদের ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস। সম্প্রতি ট্রাম্প প্রশাসনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পে ফিলিস্তিনিদের বাড়ি-ঘর ও জায়গা দখলকে বৈধ বলে ঘোষণা দিয়েছে। মার্কিন প্রশাসনের এ সম্মতির সমালোচনা করেছেন খ্রিস্টানদের ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস। খবর দ্য টাইমস অব ইসরাইল।

দীর্ঘদিন ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে মুসলিমদের বসত-বাড়ি ও জায়গার অন্যায় দখলদারিত্বকে মার্কিন প্রশাসন অবৈধ বলে আসছিল। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র তাদের আগের অবস্থান থেকে সরে এসেছে। আর তাতে পোপ ফ্রান্সিস ট্রাম্প প্রশাসনের সমালোচনা করেছেন এবং তাদের অবস্থান পরিবর্তনে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। পোপ ফ্রান্সিস বলেন, যুক্তরাষ্ট্র তাদের আগের অবস্থান পরিবর্তন করায় মধ্যপ্রাচ্যের আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা ব্যাহত হবে।

পোপ বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ইসরাইলের জন্য যে টুকু সীমানার স্বীকৃতি দেবে তার ভেতরেই যেন তারা শান্তিপূর্ণভাবে অবস্থান করে। আর আমিও এটাকেই সমর্থন দেব। পাশাপাশি ফিলিস্তিনি জনগণকেও তাদের অধিকার দিতে হবে। তাদের ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করা যাবে না।

উল্লেখ্য যে, গত সোমবার ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে ইসরাইলি বসতি স্থাপন ও দখলকে বৈধ ঘোষণা করেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পে। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রীর এ ঘোষণায় যুক্তরাষ্ট্রের ৪০ বছরের পুরোনো অবস্থান পরিবর্তন হয়।

পম্পের এ ঘোষণার পরই পোপ ফ্রান্সিস মার্কিন প্রশাসনের সমালোচনা ও ফিলিস্তিনে ইসরাইলি সহিংসতার আশংকায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তাছাড়া বিশ্বব্যাপী যুক্তরাষ্ট্রের এই ঘোষণায় সমালোচনার ঝড় শুরু হয়।