ইসরাইলি বিমান হামলায় গাজায় এখন পর্যন্ত ২৪ জন ফিলিস্তিনির মৃত্যু!

ফিলিস্তিনের গাজা ভূখণ্ডে ইসরাইলি হামলায় প্রতিরোধ আন্দোলন ইসলামী জিহাদের এক শীর্ষ কমান্ডার নিহত হওয়ার পর পরিস্থিতি ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। মঙ্গলবার থেকে শুরু হওয়া দখলদার বাহিনীর হামলায় বুধবার পর্যন্ত ২৪ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অন্তত ৭০ জন।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, গত মঙ্গলবার সকাল থেকে শুরু হওয়া এই হামলা এখনো অব্যাহত আছে। যাতে এখন পর্যন্ত ২৪ ফিলিস্তিনির প্রাণহানিসহ আরো কমপক্ষে ৫৯ জন গুরুতর আহত হয়েছেন, যাদের মধ্যে অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

যদিও ইহুদি রাষ্ট্রটির গণমাধ্যমগুলো জানায়, গাজা সীমান্তে অতিরিক্ত সেনা মোতায়েনের মাধ্যমে নিজেদের শক্তি বৃদ্ধি করছে ইসরাইল। এই সেনাবহরে রয়েছে- আয়রন ডোম ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ইউনিট, সামরিক গোয়েন্দা এবং হোম ফ্রন্ট কমান্ডের সদস্যরা। বিশ্লেষকদের মতে, ইসরাইলের হোম ফ্রন্ট কমান্ডের সেনাদের সাধারণত দেশের গুরুতর সঙ্কট ও যুদ্ধ পরিস্থিতিতে মোতায়েন করা হয়।

মঙ্গলবার অবরুদ্ধ ভূখণ্ডটিতে বোমা হামলা চালিয়ে ইসলামী জিহাদের বাহা আবু আল-আতা নামে এক শীর্ষ কমান্ডারকে হত্যা করা হয়। ইসরাইলি হামলায় আতার স্ত্রীও নিহত হন। এছাড়া ইসলামী জিহাদের এক কর্মকর্তার দামেস্কের বাড়িতে আরেক ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ওই কর্মকর্তারা ছেলেসহ দুইজন নিহত হন। তাদের রাজধানীতে এ হামলার জন্য ইসরাইলকে দায়ী করে সিরিয়া, কিন্তু ইসরাইল কোনো মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকে।

এরপরই ইসরাইল ও গাজার মধ্যে গত কয়েক মাসের মধ্যে সবচেয়ে তীব্র লড়াই শুরু হয়। সারা দিন ধরে ইসরাইলে প্রায় ২০০ রকেট নিক্ষেপ করে ইসলামী জিহাদের যোদ্ধারা। ইসরাইলের আয়রন ডোম ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষাব্যবস্থা ২০টির মতো রকেট প্রতিরোধ করে। গাজা থেকে ছুটে আসা রকেটে প্রায় ২৫ জন ইসরাইলি জখম হন। কিছু রকেট ইসরাইলের মধ্যবর্তী অঞ্চলে অবস্থিত তেল আবিব শহরে গিয়েও পড়ে।