ভারত ও সৌদি আরব ঐতিহ্যগতভাবে ঘনিষ্ঠ বন্ধু- নরেন্দ্র মোদি!

দুই দিনের সফরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি গতকাল সোমবার গভীর রাতে রিয়াদ পৌঁছেছেন
তিনি সৌদি আরবের উচ্চপর্যায়ের বার্ষিক অর্থনৈতিক সম্মেলনের তৃতীয় সংস্করণে অংশ নেবেন। একই সঙ্গে মোদি উপসাগরীয় রাজ্যের শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা করবেন।

প্রধানমন্ত্রী মোদি টুইট করেছেন, ‘সৌদি আরবে অবতরণ করেছি। গুরুত্বপূর্ণ এক বন্ধুর সঙ্গে সম্পর্ক জোরদার করার লক্ষ্যে বিশেষ সফরের শুরু হলো। সফর চলাকালে বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নেব।’

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে জানানো হয়, মোদি ফিউচার ইনভেস্টমেন্ট ইনিশিয়েটিভ (এফআইআই) অনুষ্ঠানে ‘ভারতের জন্য পরবর্তী করণীয়’ শিরোনামে মূল বক্তব্য দেবেন। ফোরামে বক্তব্য দেওয়ার পাশাপাশি তিনি সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ ও যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা করবেন। উভয় দেশ তেল ও গ্যাস, নবায়নযোগ্য জ্বালানি এবং বিমান চলাচলসহ বেশ কয়েকটি খাতে চুক্তি স্বাক্ষর করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। মঙ্গলবার থেকে শুরু হওয়া তিন দিনের এই সম্মেলনের প্রধান আয়োজক বিনিয়োগকারী, সরকার এবং শিল্প নেতারা। তাঁরা বৈশ্বিক বাণিজ্য নিয়ে আলোচনা করবেন। সামনের দশকে বিশ্বব্যাপী বিনিয়োগের প্রবণতা, সুযোগ এবং চ্যালেঞ্জ নিয়ে কথা বলবেন তাঁরা।

প্রধানমন্ত্রী মোদি নয়াদিল্লি থেকে রওনা দেওয়ার সময় এক বিবৃতিতে বলেন, ভারত ও সৌদি আরব ঐতিহ্যগতভাবে ঘনিষ্ঠ বন্ধু। সৌদি আরব ভারতের জ্বালানি চাহিদার অন্যতম নির্ভরযোগ্য সরবরাহকারী হয়ে দাঁড়িয়েছে। তিনি উল্লেখ করেছেন, প্রতিরক্ষা, নিরাপত্তা, বাণিজ্য, সংস্কৃতি, শিক্ষা এবং জনসংযোগ সৌদি আরবের সঙ্গে ভারতের দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্র।

উভয় পক্ষই গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে সমন্বয় করতে কৌশলগত অংশীদার কাউন্সিল প্রতিষ্ঠার জন্য এক চুক্তিতে স্বাক্ষর করবে। কাউন্সিলের নেতৃত্বে থাকবেন প্রধানমন্ত্রী মোদি এবং সৌদি যুবরাজ। প্রতি দুই বছর পরপর কাউন্সিলের সভা হবে।

সৌদি আরব গত মাসে জানিয়েছে, তারা জ্বালানি, পরিশোধন, পেট্রোকেমিক্যালস, অবকাঠামো, কৃষি ও খনিজ সম্পদ বাবদ ভারতে ১০০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করার কথা ভাবছে।