সাদাতঃ তুরস্কের নেতৃত্বাধীন নতুন আন্তর্জাতিক ইসলামী সেনাবাহিনী

•লিখেছেনঃ মুহাম্মাদ ইয়াসির আরাফাত মল্লিক

আজ সন্ধ্যায় যখন আপনি চা খেতে বসেছেন তখন আমি আপনার জন‍্য একটি সুখবর প্রস্তুত করতে ব‍্যস্ত ছিলাম। আশা করা যায় এই খবর আপনার উষর হৃদয়ে পানির সঞ্চার করবে।

আজকে আমি এমন একটি বিষয়ে আলোচনা করতে চলেছি যা হয়ত ইতিপূর্বে আপনি শোনেন নি! হ‍্যাঁ আমি আজ একটি সেনাবাহিনী নিয়ে আলোচনা করতে চলেছি, যে সেনাবাহিনী গঠন করা হয়েছে মুসলিম বিশ্বের স্বার্থে ও মুসলিম বিশ্বকে মজবুত নতুন ইসলামী রেঁনেসার দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে। আমি বলতে চলেছি ‘সাদাত’ আন্তর্জাতিক প্রতিরক্ষা নিয়ে।

সাদাত ইন্টারন‍্যাশনাল ডিফেন্স কনসাল্টিং হল একটি আন্তর্জাতিক সংগঠন, যার প্রধান লক্ষ্য হল মুসলিম বিশ্বকে মজবুত করতে বিভিন্ন ডিফেন্স পরিসেবা ও প্রশিক্ষণ দেওয়া। এই সংগঠনটি গঠন করেছে আর কেউ নয়, আমার আপনার প্রিয় দেশ তুরস্ক। ২০১২ সালে এই সংগঠনটি স্থাপন করেন তুরস্কের সেনাবাহিনী TSK এর এক ইসলামপন্থী সেনা আদনান তানরিওয়ারদি।
এই সংগঠনটিকে আমরা অনেকটা ইরানের ইসলামিক Islamic Revolutionary Guards Corps বা IRGC সেনা দলের সাথে তুলনা করতে পারি। তবে সাদাত, IRGC থেকে অনেকটাই ভিন্ন প্রকৃতির। সাদাত সংগঠন মুসলিম দেশ সমূহ বিশেষতঃ মধ‍্যপ্রাচ‍্যের মুসলিম দেশ সমূহকে নিরাপত্তা ও সামরিক প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে। এদের প্রশিক্ষণ সমূহের মধ্যে উল‍্যেখযোগ‍্য হল মুসলিম বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সেনাবাহিনী কে আধুনিক পদ্ধতি ও প্রযুক্তিতে আকাশ, জল ও স্থল প্রভৃতি ক্ষেত্রে প্রশিক্ষিত করে তোলা , মুসলিম বিশ্বে গোয়েন্দা পরিসেবা মজবুত করা ও সন্ত্রাসি বিরোধী অভিযানে প্রশিক্ষিত করে তোলা। প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের ৫ টি দলে বিভক্ত যথাঃ

১) Special Force Unit
২) SAT (Underwater Demolition Team)/SAS (Underwater Defence Team)
৩) Interior Security Force For Counter Terrorism Operation Field
৪) Special Force Training Centres
৫) National and International Trainings and Combined Exercises of Special Forces

তুরস্কের অভ‍্যন্তর ও সিরিয়ায় তুরস্কের নেতৃত্বাধীন Internim Government এর সেনাবাহিনী সহ বিভিন্ন মুসলিম দেশে তুরস্কের এই বাহিনী কর্মরত। অনেকের মতে এই বাহিনী হল এরদোগানের বাহিনী। উল‍্যেখ‍্য এটি একটি গুপ্ত আন্তর্জাতিক বাহিনী ও গোপনে কর্মরত। এর অধীনে কত সেনা আছে তা কেও জানে না। মুসলিম বিশ্ব কে শক্তিশালী করতে এই বাহিনী আপ্রাণ চেষ্টা করছে এবং মুসলিম বিশ্বে এরা কঠোর প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে। এই বাহিনীতে কেবল তুর্কি নয় , মুসলিম বিশ্বের সেনাবাহিনী মওজুদ আছে।

এদিকে এই বাহিনী নিয়ে আতঙ্কিত ইসরাইল, আমেরিকা সহ পাশ্চাত্যের দেশগুলো। তারা তুরস্কের এই বাহিনী নিয়ে অনেক সময় কুৎসা রটিয়ে থাকে।

যাইহোক, মুসলিম বিশ্বের ক্রান্তিকালে এই সেনাবাহিনীর অত‍্যন্তঃ প্রয়োজন ছিল। আর মহান আল্লাহ পাক তুরস্কের মাধ‍্যমে এই কাজটি করিয়ে নিয়েছেন। মধ‍্যপ্রাচ‍্য সহ মুসলিম বিশ্বকে এই বাহিনী ইসলামী রেঁনেসার পথে এগিয়ে নিয়ে যাবে বলে আশা করা যায়।