মুগ্ধতার অপর নাম বসফরাস ভ্রমণ

কল্পনা করুন আপনি একটি ফেরীর ছাদে দাড়িয়ে আছেন। ডান দিকে তাকালে ইউরোপ মহাদেশ, বাম দিকে এশিয়া। পৃথিবীতে সবচেয়ে সহজে এমন একটা অনুভূতি মিলবে ইস্তাম্বুল শহরের বুক চিরে বয়ে যাওয়া বসফরাস প্রণালীতে।
সম্ভবতঃ ইস্তাম্বুলের সবচেয়ে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জায়গা বসফরাস। কৃষ্ণ সাগরকে মর্মর সাগরের সাথে যুক্ত করেছে যে প্রাকৃতিক খাল তাই বসফরাস নামে পরিচিত। সদা প্রবাহ এই জলরাশি প্রতিনিয়ত নতুন প্রাণ সঞ্চার করে ইস্তাম্বুল শহরে।

বসফরাসের এপার থেকে ওপারে কয়েকটি রুটে ফেরী চলাচল করে করে। ইউরোপিয়ান অংশের এমিনওনু থেকে কিছুক্ষন পর পর ফেরী ছেড়ে যায় উসকুদারের উদ্দেশ্যে। এশিয়ান অংশের নাম উসকুদার। ২০-২৫ মিনিটের পথ। ইস্তাম্বুল কার্ড প্রেস করেই এসব সরকারি ফেরীতে ওঠা যায়। সরকারি হলেও সার্ভিস ভাল। এছাড়া এমিনওনু থেকে পুরো বসফরাস প্রণালী ঘুরিয়ে দেখানোর জন্য অনেক বেসরকারী ফেরী সার্ভিস আছে। গড়ে ১ ঘন্টায় আপনাকে মর্মর সাগরের মোহনা থেকে কৃষ্ণসাগরের মোহনা থেকে ঘুরিয়ে নিয়ে আসবে ফেরী। যাত্রা পথে তিনটি বসফরাস ব্রিজ মাথার উপর দিয়ে পার হবে। চোখে পড়বে বসফরাসের দুই তীরের রাজপ্রসাদ, ধনকুবেরদের ভিলা ও ঐতিহাসিক স্থাপনা। ইস্তাম্বুলের সবচেয়ে ব্যয়বহুল এলাকা বসফরাসের তীরবর্তী এলাকাগুলো। বসফরাসের তীরে রয়েছে দোলমাবহচে প্রাসাদ, বেইলার বেই প্রাসাদ। কুলেলী মিলিটারী একাডেমী, রুমেলী দুর্গ, মিহিরমাহ সুলতান মসজিদ।
ফেরী যখন এগিয়ে চলে তখন সামুদ্রিক পাখির দল ঝাঁক বেঁধে পিছু নেয় ফেরীর। এক টুকরো রুটি কিংবা সিমিট ছুড়ে দিলে খুব কাছে চলে আসে দুঃসাহসী পাখিগুলো। জলরাশির সাথে বসফরাসের তীরবর্তী সবুজের সমারোহ আপনার মনকে উৎফুল্ল করে দিবে। একহাতে একটি সিমিট ও আরেক হাতে এক কাপ তুর্কিশ চা হাতে নিয়ে যখন তাকাবেন ফাতিহ সুলতান মুহাম্মদের সাড়ে ৫ শত বছর পূর্বের দুর্গের দিকে, মনে হবে কত ইতিহাসের ঘনঘটা এই বসফরাসের তীরে।
সূর্য যখন অস্ত যাওয়ার উপক্রম তখন যদি উসকুদার নামেন ভিন্ন একটি অভিজ্ঞতা হবে। উসকুদার সৈকতে পাশাপাশি দুটি প্রকাণ্ড ওসমানী মসজিদ। একটি মিহিরমাহ সুলতান মসজিদ, আরেকটি ভালিদে সুলতান মসজিদ। মজার ব্যাপার হলো মাগরিবের নামাজের সময় দুটি মসজিদ পর পর আযান দেয়। অর্থাৎ যখন একটি মসজিদে হাইয়া আলাস সালাহ, আরেকটি মসজিদে তখন হাইয়া আলাল ফালাহ। কি এই অপূর্ব সূরের মূর্ছনা ভেসে আসে শতবর্ষী মিনার থেকে। যে কোন পর্যটকের হৃদয়ে দোলা দিবে এই মর্মস্পর্শী আযান।
উসকুদারের পাবেন তাজা ফলের জুস। স্বাদের যেমন অতুলনীয়, ইউরোপীয়ান অংশের তুলনায় দামেও সুলভ। চেখে দেখতে পারেন তুর্কিশ দোনের কিংবা আদানা কাবাব। উসকুদার সৈকত থেকে রাতের ইস্তাম্বুল সম্পূর্ণ পৃথক সৌন্দর্য মন্ডিত। শত শত বছর ধরে বসফরাস মোহচ্ছন্ন করে রেখেছে তার দর্শনার্থীদের। তাই ইস্তাম্বুল ভ্রমণের অবশ্য দর্শনীয় স্থান বসফসরাস।

Courtesy: The Ottoman Group

 597 total views,  2 views today

Start Blogging

Register Here


Registered?

Login Here

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.