এরদোয়ানের ঘোষণার পর লিরার মান দ্রুত বৃদ্ধি, অবাক সমগ্র বিশ্ব

 

টি আর টি বাংলা

এরদোয়ানের সাম্প্রতিক একটি ঘোষণার পর ডলারের বিরুদ্ধে লিরার মান ব্যপকহারে বেড়েছে, যাতে হতভম্ব সমগ্র বিশ্ব। সাম্প্রতিক তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়িপ এরদোয়ান একটি ঘোষণায় বলেছেন, ‘একজন মুসলিম হিসেবে আমি তাই করব, যা আমাকে ইসলাম করতে বলে। সেটাই আমার কাছে একমাত্র নীতি-নির্দেশিকা।’ সেই ধারাবাহিকতায় আর্থিক নীতিতে ইসলামী বিধান মানার ঘোষণা দিয়ে তুরস্কে সুদের হার কম করতে বলেছেন এরদোয়ান। এ সংবাদ জানিয়েছে আল জাজিরা।

ওই প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, বেশ কিছুদিন ধরে অব্যাহতভাবে ডলারের বিপরীতে লিরার দাম কমছিল। নানা পদক্ষেপেও তা থামার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছিল না। এ অবস্থায় গত সোমবার এরদোয়ান এক বক্তব্যে সুদের হার কমানোর ওই ঘোষণা দেন। এর পর থেকে ডলারের বিপরীতে হু হু করে লিরার দাম বাড়তে থাকে। সোমবার এক ঘণ্টায় লিরার দাম বেড়েছে ২২ শতাংশ আর মঙ্গলবার সকাল নাগাদ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪০ শতাংশ।

সোমবার সন্ধ্যা ৭টায় এক ডলারের মূল্যমান ছিল ১৮.৩৫ লিরা। রাত ৮টায় তা দাঁড়ায় ১৪.৬৫ লিরায়। এরপর রাত ১১টায় দাম দাঁড়ায় ১২.৭৫ লিরায়। গতকাল মঙ্গলবার সকালে লিরার দাম আরো বেড়ে গেলে এক ডলারের মূল্যমান দাঁড়ায় ১১.২২ লিরা। এ অবস্থায় দেশের প্রধান শেয়ার বাজারে লেনদেন কিছু সময়ের জন্য বন্ধ রাখা হয়।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট মনে করেন, মুদ্রার দাম কম হলে রপ্তানি বাড়বে। তবে অর্থনীতিবিদরা বলছেন, মুদ্রাস্ফীতি কমাতে হলে সুদের হার বাড়াতে হবে। সেদিকে লক্ষ্য রেখে এরদোয়ান মুদ্রাস্ফীতির হার চার শতাংশের মধ্যে রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এক্ষেত্রে তিনি ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের সহায়তা এবং পেনশন তহবিলে আরো অর্থ দেয়ার কথা জানিয়েছেন।

গত নভেম্বরে প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান বলেছিলেন, তিনি তুরস্কের আর্থিক স্বাধীনতার জন্য লড়ছেন। মূলত দেশকে বিদেশি বিনিয়োগের নির্ভরতা থেকে বের করে আনাই তার লক্ষ্য। তুরস্ক আর আমদানির ওপর নির্ভরশীল দেশ হবে না বলেও দাবি করেন এরদোয়ান।

তুর্কিদের সুদের হারের চাপে চূর্ণ হতে দেবেন না দাবি করে এরদোয়ান বলেন, ক্ষমতায় আসার পর যেভাবে আমরা মূল্যস্ফীতিকে চার শতাংশে নামিয়ে এনেছিলাম, আমরা আবার এটিকে কমিয়ে আনব। ইনশআল্লাহ মুদ্রাস্ফীতি শীঘ্রই কমতে শুরু করবে।

এদিকে দেশটির আচমকা এই পরিবর্তনে হতভম্ব সমগ্র বিশ্ব। ব্রিটিশ অর্থনীতিবিদ টিমোথি এশ তুরস্কের এই অর্থনৈতিক বৃদ্ধি দেখে জানান যে, জীবনে তিনি এমনটা কখনো দেখেন নাই। অর্থনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, লিরার এই মূল্যবৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে এরদোয়ান আগাম নির্বাচনের ঘোষণা দিতে পারেন এবং ২০২২ সালের শেষ দিকে নির্বাচনে যেতে পারে তুরস্ক। বিদেশি কূটনীতিকরা মনে করছেন, দেশের আর্থিক উন্নতি হলে ২০২৩ সালের নির্বাচনে এরদোয়ানের পক্ষে সহজে জয়লাভ করা সম্ভব হবে।

 

 309 total views,  2 views today

Start Blogging

Register Here


Registered?

Login Here

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.